প্রবন্ধ

আজ বেদনা-বিধুর ঐতিহাসিক ২১ রমজান মওলায়ে কায়নাত হযরত আলী ইবনে আবি তালিব আলাইহিস সালামের পবিত্র শাহাদাত দিবস।

“আজ কাদে আম্বিয়া আউলিয়া রয়েছে যত

বুক ফাটাইয়া অশ্রু জরাইয়া মজ্জুব পাগলের মত।”

আজ বেদনা-বিধুর ঐতিহাসিক ২১ রমজান।মওলায়ে কায়নাত আমীরুল মুমিনীন হযরত আলী ইবনে আবি তালিব আলাইহিস সালামের পবিত্র শাহাদাত দিবস। ৪০ হিজরির এই তারিখে সোমবার ৬৩ বছর বয়সে ইরাকের কুফায় মওলা পাক শাহাদাত বরণ করেন। এর আগে ১৯ রমজান কুফার মসজিদের মেহরাবে ফজরের নামায আদায়কালে এক বিষমাখানো তরবারির দিয়ে নরপিশাচ, মুনাফিক, আবদার রহমান ইবনে মুলজাম (তার ওপর আল্লাহর ল্যানত) কর্তৃক মাওলা পাকের মাথার ওপর মারণাঘাত হানা হয়। অনন্তকাল আল্লাহর লানত বর্ষিত হোক মাওলা আলী আলাইহিস সালামের সকল শত্রুদের উপর।কাবাগৃহে জন্মগ্রহণের সৌভাগ্য অর্জনকারী আলী (আ.) কুফা মসজিদের মেহরাবে যখন অভিশপ্ত ইবনে মুলজিমের বিষাক্ত তরবারী তাঁর কপালে আঘাত হানলো তখন তিনি একটি বাক্যই বলেছেন।( فُزْتُ وَ رَبّ الْکَعْبَة )“কাবার প্রভুর শপথ! আমি সফলকাম হয়েছি- শাহাদাত আমার জন্য সফলতা।” ২১শে রমজানের রাতে শাহাদতের কিছুক্ষণ আগেও তিনি বলেনঃ আল্লাহর শপথ! শাহাদত আমার কাছে এমন কিছু নয় যে তার সম্মুখীন হতে আমি অসন্তুষ্ট হব, বরং তা যেন আমার কাছে নিজের হারানো অস্তিত্বকে ফিরে পাবার মত আনন্দদায়ক, কিংবা আমি যেন রাতের অন্ধকারে তৃষ্ণার্ত অবস্থায় পানি খুঁজছিলাম, আর হঠাৎ তা পেয়ে গেলাম, আল্লাহর কাছে যা আছে সৎকর্মশীলদের জন্য সেটাই তো উত্তম।”
দুনিয়ার বুকে সর্বোচ্চ সম্মানিত যে কাবাঘর, যে ঘরের দিকে মুখ করে সর্বকালের বিশ্ব মুসলিম তাদের স্রস্টার উদ্দেশ্যে নিবেদিত সর্চোচ্চ ইবাদাত সালাতে কিয়াম করে আর শিজদা দেয়- সেই ঘরটাই যার আতুরঘর- তাঁর প্রকৃত মর্যাদা বুঝার ও বর্ননার ক্ষমতা যে আমাদের কারোরই নেই।আর এমনটা যে হতেই পারে, সে ব্যাপারে রাসূল (সা.) নিজেই বলে গেছেন। তিনি বলেছেনঃ আল্লাহ এবং আমি ছাড়া আর কেউ আলীকে চেনে না।” আবার অন্যত্র বলেছেনঃ আল্লাহ এবং আলী ছাড়া আর কেউ আমাকে চেনে না।” এ থেকে অনুমিত হয় যে মওলা আলী (আ.) কে মূল্যায়নের ক্ষমতা সবার নেই। আবার রাসূলকে জানার এবং বোঝার ক্ষেত্রে সবচে যোগ্যতম এবং অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ব্যক্তি হলেন মওলা আলী (আ.)। তাঁকে মূল্যায়ন করতে গিয়ে হযরত মুহাম্মদ (সা.) বলেছেনঃ তোমরা যদি আদমের জ্ঞান, নূহের ধার্মিকতা, ইব্রাহিমের অনুরক্তি, মূসার সম্ভ্রম এবং ঈসার সেবা ও মিতাচার দেখতে চাও, তাহলে আলীর উজ্জ্বল মুখের দিকে তাকাও।”
তাঁর বংশধারা রাসূলের অকৃত্রিম আদর্শ গ্রহণ ও তার প্রচার প্রসারের প্রামাণ্য দলীল এবং সর্বজনগ্রাহ্য মাধ্যম। রাসূল যেমনটি আমাদেরকে যাবতীয় বিচ্যুতি থেকে রক্ষা করতে বলে গিয়েছিলেনঃ- আমি তোমাদের জন্যে দুটি জিনিস রেখে যাচ্ছি,একটি হলো আল-কোরআন এবং অপরটি হলো আমার পরিজন বা আহলে বাইত।” ফলে আইলে বাইতের অন্যতম মহান পুরুষ মওলা আলী (আঃ) যে মুসলিম উম্মাহকে বিচ্যুতি থেকে রক্ষা করতেই পদক্ষেপ নেবেন, তাতে সন্দেহ করার কোনো অবকাশই নেই। আমাদের অদূরদর্শিতার কারণে আমরা হয়তো তাঁর আদর্শ ও কর্মপ্রক্রিয়াকে সঠিকভাবে উপলব্ধি করতে ভুল করি। তুলনা করে বলা যেতে পারে যে, চাঁদের গায়ে দাগ আছে বলে অনেকে মনে করে, অথচ তার জ্যোৎস্নায় কোনোরকম দাগ নেই, তা যে-কেউই বুঝতে পারেন। আমরা মওলা আলীর (আঃ) কর্মজীবন, আধ্যাত্মিকতা ও আদর্শের নিষ্কলুষ জ্যোৎস্নায় স্নান করে নিজেদের সমগ্র জীবনকে সমৃদ্ধ করে তুলবো- এটাই হোক মওলার শাহাদাৎবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আমাদের যথার্থ প্রত্যাশা।
অনেকেই মনে করেন তাঁর শাহাদতের রাতটি ছিল পবিত্র শবে কদরের(লাইলাতুল কদর)।ইমাম জাফার সাদিক (আঃ) বলেছেনঃ ১৯ রমজানের রাতে ভাগ্য সম্পাদন হয়, ২১ রমজানের রাতে ভাগ্য অবলোকন হয়, ২৩ রমজানের রাতে ভাগ্য নির্ধারণ হয়(যা কদরের রাত)” -সূত্রঃ ওয়াসায়েল উশ শীয়া, খন্ড – ০৭, পৃষ্ঠা ২৫৯ \ নুরুস সাকলাইন, খন্ড – ০৪, পৃষ্ঠা ২২৬, হাদিস নং ৫৮।
মওলার পবিত্র শাহাদাত দিবসে সকল অনুসারীদেরকে জানাই আন্তরিক শোক-সমবেদনা ও মহান সত্তার শানে পেশ করছি অশেষ দরুদ ও সালাম।

 

আল্লাহুম্মা লা’আন ক্বাতালাতাল আমিরুল মু’মিনীন আলী ইবনে আবু তালিব আলাইহিস সালাম।ওয়া লা’নাতুল্লাহি আলা আদাইহিম ইলা ইয়াওমুদ্দীন।আল্লাহুম্মাহ লা’ন আউয়ালা জালামা মুহাম্মাদ ওয়া আলে মুহাম্মাদ।আল্লাহুমা সাল্লে আলা মুহাম্মাদ ওয়া আলে মুহাম্মাদ আত তাইয়েবিন আত তাহেরিন ওয়াল মাসুমিন আল মজলুমিন ওয়া লা’নতুল্লাহে ‘আলা আদাইহিম।আল্লাহুম্মা সাল্লে আলা মুহাম্মাদ ওয়া আলে মুহাম্মাদ ওয়া আজ্জিল ফারাজাহুম, ইয়া আলী মাদাদ।


 

About the author

Syed Hossain ul Haque

সৈয়দ হোসাইন উল হক তরফ ও শ্রীহট্ট বিজয়ী মহান মনিষী সিপাহসালার সৈয়দ নাসির উদ্দিন (রহঃ)এর অধস্থন পুরুষ ‘নবী বংশ পরিচিতি ও মহান কোরবানি’ গ্রন্থের লেখক, হবিগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী সুরাবই সাহেব বাড়ীর সিংহপুরুষ সৈয়দ মোঃ ইসহাক আল হুসাইনী (রহঃ)সাহেবের মেঝ ছেলের ঘরের বড় নাতি।মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পাশ করার পর উচ্চশিক্ষার জন্য স্কলারশিপ নিয়ে যুক্তরাজ্য গমন অতঃপর ইউনিভার্সিটি অফ সান্ডারল্যান্ড থেকে বিজনেস ম্যানেজমেন্টে অনার্স এবং কুইন মেরী ইউনিভার্সিটি থেকে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস এন্ড পলিটিক্সের উপর এম এস সি। তারপর ২০১৮ সালে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে ইসলামিক স্টাডিজ এন্ড হিস্টোরি’তে এম-ফিল। শিক্ষানবিশ কালে সেই সকল বিশ্ববিদ্যালয় সমুহের বিভিন্ন ছাত্র সংঘটনের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন।বর্তমানে লন্ডনে স্থায়ী ভাবে বসবাস করছেন পাশাপাশি লন্ডনের একটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের প্রজেক্ট ম্যানেজারের দায়িত্বরত।তাছাড়াও যুক্তরাজ্যে একটি ইসলামিক ইউনিভার্সিটিতে ভিজিটর লেকচারার ও গবেষনা কেন্দ্রে অবিরাম বিভিন্ন বিষয়ে গবেষনা চালিয়ে যাচ্ছেন।আল-কোরআন ও হাদীসের আলোকে “যবহে আজিম এবং জিকিরে শাহাদাত”শীর্ষক গ্রন্থখানা তার দীর্ঘ গবেষনা ও অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল।

মতামত দিন