প্রবন্ধ

আজ ৭ ই শাবান কারবালার তরুণ বীর শাহজাদা কাসিম ইবনে হাসান (আ:) এর পবিত্র শুভ বিলাদত শরীফ।

আজ ৭ ই শাবান কারবালার তরুণ বীর শাহজাদা কাসিম ইবনে হাসান (আ:) এর পবিত্র শুভ বিলাদত শরীফ। ৪৭ হিজরির এই দিনে জন্ম গ্রহণ করেন কাসিম ইবনে ইমাম হাসান মুজতাবা (আ)। তাঁর জন্ম হয়েছিল ইমাম হাসান (আ)’র স্ত্রী উম্মে ফারওয়ার গর্ভে। ইমাম হাসান (আঃ) এই পুত্রের নাম রাখেন ‘কাসিম’, যার অর্থ বণ্টনকারী।

শাহাদাতের সন্নিকটে ইমাম হাসান (আঃ) ভাই হুসাইন (আঃ)কে বললেনঃ “আমার কাসিম কে আমার কাছে দাও ভাই।” অতঃপর কাসিমের হাতের উপর ইমাম হুসাইনের হাত রেখে বললেনঃ ” ভাই হুসাইন, আমার এই সন্তান কে এতিম মনে করে দূর্বল ভেবোনা, সেও তোমার সাহায্যকারী হবে কারবালার ময়দানে এমন ভাবে নিজেকে কুরবান করবে যা আর কেউ সেভাবে পারবে না।” ইমাম হুসাইন (আঃ) কাসিম কে বুকে জড়িয়ে বললেনঃ “কাসিম তুমি আমারও সন্তান।”এই সময় শাহজাদা কাসিম (আঃ)-এর বয়স ছিল মাত্র ৩ বছর। ইমাম হাসান(আঃ)-এর এতিম পুত্র কে কখনোই এতিম অনুভব হতে দেননি ইমাম হুসাইন(আঃ)।
শাহজাদা কাসিম (আঃ) ছিলেন পিতা ইমাম হাসান (আঃ)-এর সৌন্দর্য্য ও মাধুর্যের জ্বল জ্যান্ত ওয়ারিস, তিনি পিতার সাদৃশ্য ছিলেন এবং ইমাম হুসাইন (আঃ) শাহজাদা কাসিম (আঃ) কে দেখলেই ভাই হাসানের ছেড়ে যাওয়ার দুঃখ ভুলে যেতেন, বলতেনঃ – “আমার ভাই তার বাল্যকালে যেমন ছিল তা দেখতে হলে কাসিম কে দেখে নাও, সে তার পিতার প্রতিচ্ছবি।”
৯ বছর বয়স থেকে শাহজাদা কাসিম(আঃ) চাচা মাওলা আবুল ফযল আব্বাস (আঃ) এবং চাচাতো ভাই মাওলা আলী আকবর(আঃ) নিকট যুদ্ধের কলাকৌশল শিক্ষা নিয়েছেন, খুব কম বয়সী হলেও তিনি এমনভাবে বিষয়টিকে গুরুতর মনে করতেন তা দেখে আহলেবাইত (আঃ) মারহাবা বলতেন। শৌর্য বীর্যবান যুবকের মতই তিনি কলাকৌশল শিক্ষা নিয়ে দাদা মাওলা আলী(আঃ)’র মত বীরত্ব অর্জন করেন।
আশুরার রাতে ইমাম যখন তাঁর সঙ্গীদের জানিয়ে দিয়েছিলেন যে আগামীকাল আমরা সবাই শহীদ হব, তখন এই তরুণ ভাতিজাও শাহাদতের প্রেমে বিভোর হয়ে প্রশ্ন করেছিলেন, চাচাজান আমিও কি শহীদ হব? তখন ইমাম পাল্টা প্রশ্ন করেন, শাহাদত তোমার কাছে কেমন মনে হয়? তিনি বলেছিলেনঃ সত্যের পথে শাহাদত মধুর চেয়েও মিষ্টি! খুশি হয়ে ইমাম জানান, হ্যাঁ, তুমিও আগামীকাল শাহাদত বরণ করবে। তিনি শাহাদত বরণ করেছিলেন কারবালার হৃদয়-বিদারক ট্র্যাজেডিতে। সে সময় তাঁর বয়স ছিল মাত্র ১৪।
কারবালার তরুণ বীর শাহজাদা কাসিম ইবনে হাসান (আ:) পবিত্র বেলাদত দিবস উপলক্ষে সবাইকে জানাই আন্তরিক অভিনন্দন, মোবারকবাদ ও তার মহান সত্তার শানে পেশ করছি অশেষ দরুদ ও সালাম।
আল্লাহুমা সাল্লে আলা মুহাম্মাদ ওয়া আলে মুহাম্মাদ আত তাইয়েবিন আত তাহেরিন ওয়াল মাসুমিন আল মজলুমিন।

About the author

Syed Hossain ul Haque

সৈয়দ হোসাইন উল হক তরফ ও শ্রীহট্ট বিজয়ী মহান মনিষী সিপাহসালার সৈয়দ নাসির উদ্দিন (রহঃ)এর অধস্থন পুরুষ ‘নবী বংশ পরিচিতি ও মহান কোরবানি’ গ্রন্থের লেখক, হবিগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী সুরাবই সাহেব বাড়ীর সিংহপুরুষ সৈয়দ মোঃ ইসহাক আল হুসাইনী (রহঃ)সাহেবের মেঝ ছেলের ঘরের বড় নাতি।মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পাশ করার পর উচ্চশিক্ষার জন্য স্কলারশিপ নিয়ে যুক্তরাজ্য গমন অতঃপর ইউনিভার্সিটি অফ সান্ডারল্যান্ড থেকে বিজনেস ম্যানেজমেন্টে অনার্স এবং কুইন মেরী ইউনিভার্সিটি থেকে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস এন্ড পলিটিক্সের উপর এম এস সি। তারপর ২০১৮ সালে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে ইসলামিক স্টাডিজ এন্ড হিস্টোরি’তে এম-ফিল। শিক্ষানবিশ কালে সেই সকল বিশ্ববিদ্যালয় সমুহের বিভিন্ন ছাত্র সংঘটনের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন।বর্তমানে লন্ডনে স্থায়ী ভাবে বসবাস করছেন পাশাপাশি লন্ডনের একটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের প্রজেক্ট ম্যানেজারের দায়িত্বরত।তাছাড়াও যুক্তরাজ্যে একটি ইসলামিক ইউনিভার্সিটিতে ভিজিটর লেকচারার ও গবেষনা কেন্দ্রে অবিরাম বিভিন্ন বিষয়ে গবেষনা চালিয়ে যাচ্ছেন।আল-কোরআন ও হাদীসের আলোকে “যবহে আজিম এবং জিকিরে শাহাদাত”শীর্ষক গ্রন্থখানা তার দীর্ঘ গবেষনা ও অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল।

মতামত দিন