প্রবন্ধ হাদিস

হাদীস শরীফে বার ইমাম

হাদীস শরীফে বার ইমাম

আল-কোরআনে আল্লাহ বলেন, ‘ক্বিয়ামতের ময়দানে প্রত্যেককে তার ইমামের সাথে পুনরুত্থিত করা হবে ।’ আর এটা নিঃসন্দেহে সত্য যে রাসূল (সা.) এর পরলোকগমনের পর মুসলমানদের মধ্যে বিভিন্ন পথ ও মতের উদ্ভব হয়েছে । আর ন্যায় সঙ্গত কারণেই প্রত্যেক জনগোষ্ঠীকে তার অনুসৃত নেতৃত্বের সাথে ক্বিয়ামতের দিবসে পুনরুত্থিত করা হবে । সে কারণে ইসলাম ও ইসলামী উম্মতকে সঠিক খাতে প্রবাহিত এবং সকল প্রকার বিচ্যুতি থেকে সংরক্ষিত রাখার জন্যে ইমামদের গুরুত্ব অতুলনীয় প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ মোস্তফা (সা.) বলেছেন,

لا یزال الاسلام عزیزا الی اثنی عشر خلیفة

অর্থাৎঃ ইসলাম প্রিয়পাত্র হবেনা যতক্ষন না পর্যন্ত বারজন খলিফা অতিবাহিত হবে । (সহি বুখারী, খণ্ড-৬, পৃঃ-৩)

মহানবী (সা.) এর অন্তর্ধানের পর ইসলামে বারজন খলিফা বা নেতা আগমন করবেন, এ ব্যাপারে বিভিন্ন হাদীস ও ইতিহাস গ্রন্থে দু’ধরণের হাদীস পরিলক্ষিত হয়।

একঃ এমন সব হাদীস যেখানে শুধূমাত্র বারজন খলিফার আগমন বার্তা দেয়া হয়েছে যে তারা সকলে কোরাইশ বংশ থেকে হবেন । দৃষ্টান্ত স্বরূপঃ

روی البخاری عن جابر بن سمره قال: سمعت رسول الله یقول: «یکون اثناعشر امیرا» فقال کلمه لم اسمعها، فقال ابی: انه قال: «کلهم من قریش»

অর্থাৎঃ আল বুখারী জাবির বিন সামারাহ থেকে বর্ণনা করেছেন যে তিনি বলেছেন আমি আল্লাহর রাসূলের কাছ থেকে শুনেছি যে তিনি বলেছেনঃ বারজন নেতা (আমার পরে) আগমন করবে । অতঃপর একটি শব্দ উচ্চারণ করলেন, আমি শুনতে পাইনি । আমার পিতা বলেন, তিনি বলেছেন তারা সকলে কুরাইশ বংশ থেকে হবেন । (সহি বুখারী, খণ্ড-৯, পৃঃ-১০১, কিতাবুল আহকাম, বাব নং-৫১, বাবুল ইসতিখলাফ)

মুসলিম তার সহীহাতে জাবির বিন সামারাহ থেকে নিম্নলিখিত ভাবে বর্ণনা করেছেন, জাবির বিন সামারাহ বলেনঃ

دخلت مع ابی علی النبی (ص) فسمعته یقول: ان هذا الامر لا ینقضی حتی یمضی فیهم اثنی عشر خلیفة قال ثم تکلم بکلام خفی علی، قال فقلت لابی: ما قال ؟ قال : «کلهم من قریش»

অর্থাৎঃ “আমি আমার পিতার সাথে নবী (সা.) এর খেদমতে উপস্থিত হলাম । অতঃপর আমি শুনতে পেলাম যে তিনি বলেছেনঃ যতক্ষন পর্যন্ত বরাজন খলিফা আগমন না করেছেন ততক্ষন পর্যন্ত মুসলমানদের ক্রিয়া কর্ম সুস্পষ্টভাবে সম্পন্ন হবে না । তিনি (জাবির) বলেনঃ নবী (সা.) কি যে বললেন আমি তা বুঝতে পারি নি । তিনি বলেন,আমি আমার বাবাকে বললাম, তিনি কি বলেছিলেন ? উত্তরে আমার পিতা বলেন, তিনি বলেছেনঃ তারা সবাই কুরাইশ বংশ থেকে হবেন ।”(সহি মুসলিম, খণ্ড-৬, পৃঃ-৩ ও ৪, মিসর প্রিন্ট, তিনি ৮০ টা সনদ সহ বিভিন্ন প্রকার শব্দের তারতম্যের মাধ্যমে উক্ত বিষয়ে হাদীস বর্ণনা করেছেন)

মুসলিম অন্যত্র আরো হাদীস বর্ণনা করেছেন । তিনি উল্লেখ করেন যে নবী (সা.) বলেছেনঃ

لا یزال امر الناس ماضیا ما ولیهم اثنی عشر رجلا ثم تکلم النبی (ص) یکلمه خفیت علی فسألت ابی: ماذا قال رسول الله (ص) ؟ فقال «کلهم من قریش»

অর্থাৎঃ যতক্ষন পর্যন্ত বারজন খলিফা মানুষের উপর কর্তৃত্ব না করছেন ততক্ষন পর্যন্ত তাদের কাজ কর্ম সঠিকভাবে সম্পন্ন হবে না । অতঃপর নবী (সা.) কি যেন উচ্চারণ করলেন আমি তা বুঝতে পারিনি । আমি আমার পিতাকে জিজ্ঞেস করলাম নবী (সা.) কি বলেছেন ? তিনি বলেন নবী (সা.) বলেছেন, তারা সকলে কুরাইশ গোত্রের অন্তর্ভুক্ত ।

আবু দাউদ জাবির বিন সামারাহ থেকে বর্ণনা করেছেন যে তিনি বলেছেনঃ

سمعت رسول الله (ص) یقول: لا یزال هذا الدین عزیزا الی اثنی عشر فکبر الناس و ضجوا، ثم قال لابی: یا اباه ما قال ؟ قال: «کلهم من قریش»

অর্থাৎঃ আমি রাসূলুল্লাহর কাছ থেকে শুনেছি, তিনি বলেছেন, বারজন পর্যন্ত এ দ্বীন পৃথিবীর বুকে সম্মানিত থাকবে । অতঃপর জনগনের তাকবীর ধ্বনীতে কোলাহল সৃষ্টি হল । পরে তিনি কি যেন একটা শব্দ বললেন । আমি আমার পিতাকে জিজ্ঞেস করলাম, হে পিতা তিনি কি বলছেন ? পিতা বললেন তিনি বলেছেন, তারা সকলে কুরাইশ বংশ থেকে আসবেন ।(সহি আবি দাউদ, খণ্ড-২, পৃঃ-২০৭, কিতাব আল মাহাদী)

তিরমিযি তার সহীহাতে এভাবে উল্লেখ করেছেনঃ

قال جابر بن سمره انه قال رسول الله: یکون من بعدی اثنی عشر امیرا ثم تکلم بشلی لم افهمه فسألت الذی یلینی، فقال: قال کلهم من قریش.

অর্থাৎঃ জাবির বিন সামারাহ বলেছেন যে রাসূল (সা.) বলেছেনঃ আমার পরবর্তী বারজন আমীর আগমন করবেন । অতঃপর তিনি কিছু বললেন যা আমার বোধগম্য হয়নি । আমি আমার পেছেনে উপবিষ্ট ব্যক্তিকে জিজ্ঞেস করলাম যে তিনি কি বলেছেন ? তিনি বললেন রাসূল (সা.) বলেছেনঃ তারা সবাই কুরাইশ বংশদ্ভুত হবেন ।(সহি আত তিরমিযি, খণ্ড-২, পৃঃ-৪৫)

জনাব তিরমিযি উক্ত হাদীসটিকে সহি ও হাসান বলে আখ্যায়িত করেছেন । তিনি একই রকম আরো অনেক হাদীস জাবির বিন সামারাহ থেকৈ বর্ণনা করেছেন ।

বারজন খলিফা সংক্রান্ত বিষয়ে মুসনাদে আহামাদের গ্রন্থকার, জাবির বিন সামারাহ থেকে নিম্নলিখিতরূপে বর্ণনা করেছেনঃ

قال سمعت النبی یقول : یکون لهذه الامه اثنی عشر خلیفة

অর্থাৎঃ তিনি বলেছেন, আমি নবী (সা.)-এর কাছ থেকে শুনেছি যে তিনি বলেছেনঃ আমার উম্মতের জন্যে বারজন খলিফা আগমন করবেন । লেখক মোট ৩৪ টি সূত্রে একই ধরণের হাদীস তার গ্রন্থে লিপিবদ্ধ করেছেন ।(মুসনাদে আহমাদ, খণ্ড-১, পৃঃ-৩৯৮; খণ্ড-৫, পৃঃ-৮৬-১০৮)

আল হাকেম নিশাপুরী তার বিখ্যাত ‘আল মুসতাদরাক আস-সহিহাইন ফি’মারিফাত আস-সাহাবা’-তে আউন বিন জাহফিা থেকে উপরোক্ত হাদীসসূহের ন্যায় আরো হাদীস বর্ণনা করেছেন এবং বলেছেন এগুলো তার পিতার কাছ থেকে শুনেছেন ।(মুসতাদরাক আস সাহিহাইন, খণ্ড-৩, পৃঃ-৬১৭, ৬১৮ ভারত প্রিন্ট)

তাছাড়াও আরো বহু ইতিহাস ও হাদীস গ্রন্থে এ ধরণের হাদীস বর্ণিত আছে ।(তারিখে বাগদাদ, খণ্ড-১৪, পৃঃ-৩৫৩, হাদীস নং-৭৬৭৩; মুনতাখাব কানযুল উম্মাল, খণ্ড-৫, পৃঃ-৩১২)

উপরোক্ত বিষয় সম্পর্কে সুন্নী বিশ্বের বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ আ্ল্লামা জালালুদ্দীন সূয়ুতি তার সুপরিচিত গ্রন্থ “তারিখ আল খোলাফা” তে নিম্নলিখিতরূপে লিপিবদ্ধ করেছেনঃ

و عند احمد و البزار بسند حسن عن ابن مسعود انه سئل کم یملک هذه الامه من خلیفه ؟ فقال: سألنا عنها رسول الله (ص) فقال : اثنا عشر کعده نقباء بنی اسرائیل.

অর্থাৎঃ আহমাদ ও আল বাযযার উত্তম সনদের ভিত্তিতে ইবনে মাসউদ থেকে বর্ণনা করছেন যে তাকে জিজ্ঞেস করা হলো, কতজন খলিফা এ উম্মতের উপর শাসন চালাবনে ? তিনি বললেন, আমারা এ প্রসংঙ্গে নবী (সা.) কে প্রশ্ন করেছিলাম তিনি বলেছেন, তার বনি ইসরাইলের বারজন নকীবের সমান সংখ্যক হবেন ।(তারিখে খোলাফা, পৃঃ-১০)

ইবনে হাজার তার স্বীয় গ্রন্থে এভাবে বর্ণনা দিচ্ছেনঃ

اخرج الطبرانی عن جابر بن سمره ان النبی (ص) قال: یکون بعدی اثنی عشر امیرا کلهم من قریش.

অর্থাৎঃ তাবারানী জাবির বিন সামুরাহ থেকে বর্ণনা দিচ্ছেন যে নবী (সা.) বলেছেনঃ আমার পরে বারজন নেতা আগমন করবে, তারা সকলে কুরাইশ বংশের হবেন ।(আস সাওয়ায়েক আল মুহরিক্বা, পৃঃ-১৮৯)

আমরা এই প্রথম প্রকার হাদীসসমূহ থেকে এ সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারি যে, মুসলিম উম্মতের কাজ-কর্ম সুস্পষ্টভাবে পরিচালনার জন্যে, ইসলামকে সম্মানের আসনে অধিষ্ট করার লক্ষে নবী (সা.)-এর বংশ কুরাইশ থেকে তার অন্তর্ধানের পর পর্যায়ক্রমে ইমাম বা খলিফা হিসেবে বারজন সুমহান ব্যক্তি আগমন করবেন ।

দুইঃ এমন সব হাদীস যেখানে স্পষ্ট করে বার ইমামের নাম উল্লেখ করা হয়েছে । অনেক সুন্নী গ্রন্থকার তাদের প্রত্যেকের নাম তাদের বর্ণিত হাদীসসমূহে উল্লেখ করেছেন । তারা বলেছেনঃ বার ইমামের প্রথম হচ্ছেন আলী ইবনে আবি তালিব । অতঃপর তার জৈষ্ঠ পুত্র হাসান, তার পর হুসাইন (আ.)। অতঃপর হুসাইনের বংশ থেকে নয়জন ইমাম আসবেন যার শেষজন হবেন মাহদী মওউদ ।

ইয়া নাবিউল মাওয়াদ্দা গ্রন্থে এভাবে বর্ণিত আছেঃ

আতাল নামক একজন ইয়াহুদী মহানবী (সা.) এর খেদমতে উপস্থিত হয়ে আরজ পেশ করলোঃ হে মুহাম্মদ, কয়েকটা প্রশ্ন আমি আপনাকে করতে চাই, যা কিছুদিন থেকৈ আমার মানসপটে আন্দোলিত হচ্ছে । যদি আপনি এর উত্তর আমাকে প্রদান করেন তাহলে আমি আপনার হস্তে ইসলাম গ্রহন করবো ।

নবী পাক (সা.) বললেন, হে ‘আবু আম্মারা’, তুমি প্রশ্ন করে যাও, কোন অসুবিধা নেই । ঐ ব্যক্তি কয়েকটি প্রশ্ন করলো এবং প্রতিবারেই আপনি সত্য বলেছেন, বলে সম্মতি প্রকাশ করলো । লোকটি জিজ্ঞেস করলোঃ আমাকে বলে দিন, আপনার উত্তরাধীকারী কে ? কেননা কোন নবীই উত্তরাধীকারী না রেখে দুনিয়া ত্যাগ করেন নি । আমাদের নবী হযরত মূসা (আ.) বলে গেছেন তার অবর্তমানে হযরত ইউশায়’বিন নুন হলেন আল্লাহর নবী । নবী করিম (সা.) উয়াহুদী লোকটির প্রশ্নের উত্তরে বললেনঃ

আমার উত্তরাধীকারী হলো আলী ইবনে আবি তালিব এবং তার পরে আমার দুই সস্তান হাসান ও হুসাইন । অতঃপর অবশিষ্ট নয়জন ইমাম, হুসাইনের বংশ থেকে আগমন করবেন ।

“হে মুহাম্মদ দয়া করে তাদের নাম বলে দিন”- লোকটি বললো । নবী (সা.) বললেনঃ হুসাইনের পরলোকগমনের পর তার পুত্র আলী, তার অন্তর্ধানের পর স্বীয় পুত্র মুহাম্মদ, তার ইন্তেকালের পর জা’ফর আর জাফরের তিরোধনের পর তদীয় পুত্র মুসা, মুসার ইহলোক ত্যাগের পর তার ছেলে আলী, আলীর ইন্তেকালের পর ততদীয় পুত্র মুহাম্মদ আর মুহাম্মদের পর তদীয় পুত্র আলী, আলীর ইন্তেকালের পর তদীয় ছেলে হাসান এবং হাসানের পর তদতীয় সন্তান মুহাম্মদ মাহদী পর্যায়ক্রমে ইমাম হবেন । তারা আল্লাহর হুজ্জাত বা যমিনের বুকে অকাট্য দলীল ।”

পরক্ষনেই ইয়াহুদী লোকটি ইসলাম গ্রহন করলেন । তিনি সঠিক পথনির্দেশনা পেয়ে আল্লাহর অশেষ প্রশংসা করে বিদায় নিলেন ।(ইয়ানাবিউল মাওয়াদদাহ,পৃঃ-৪৪১; ফারায়েদুস সমিতাইন, খণ্ড-২, পৃঃ-১৩৩, হাদীস নং-৪৩০-৪৩১)

এ ধরণের প্রচুর হাদীস ইমামীয়া মতাবলম্বীদের গ্রন্থাদিতে পরিলক্ষিত হয় । যেহেতু আমরা তাদের কোন বর্ণনা এ পুস্তকে লিপিবদ্ধ করতে অনিচ্ছুক তাই প্রথম থেকেই চেষ্টা করে আসছি আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের নির্মল ও পরিশুদ্ধ উৎসসূহ থেকেই সকল হাদীস বর্ণনা করতো ।

আরো একটা হাদীসে জাবির বিন আব্দুল্লাহ আনসারী থেকে বর্ণিত আছে যে তিনি বলেছেনঃ যখন

)أَطِيعُوا اللَّهَ وَأَطِيعُوا الرَّسُولَ وَأُولِي الْأَمْرِ مِنْكُمْ(

অর্থাৎঃ তোমরা আল্লাহকে অনুসরণ কর, অনুসরণ ও আনুগত্য কর রাসূলের এবং তোমাদের মধ্যে ‘উলুল আমর’- এর ।

আয়াতটি অবতীর্ণ হয় তখন আমি রাসূরে খোদা (সা.) কে জিজ্ঞেস করলামঃ হে আল্লাহর রাসূল, আমরা আল্লাহ ও তার রাসূলকে চিনেছি । এখন উক্ত আয়াত অনুযায়ী ‘উলুল আমর’ কে চেনা আমাদের জন্য একান্ত প্রয়োজন যাদেরকে অনুসরণ করা, যাদের আনুগত্য করা আমাদের জন্যে ফরজ করা হয়েছে । অনুগ্রহ করে আপনি আমাদের জন্যে উলুল আমরের উদ্দেশ্য বলে দিন ।

রাসূলে আকরাম (সা.) উত্তরে বললেনঃ হে জাবির, তারা আমার উত্তরাধীকারী এবং আমার পরবর্তীকালের ইমাম । তাদের প্রথম জন আলী ইবনে আবি তালিব । অতঃপর পর্যায়ক্রমে হাসান, হুসাইন, আলী ইবনে হুসাইন এবং মুহাম্মদ ইবনে আলী । তৌরাতে এই শেষোক্ত ইমামের নাম বাক্বির হিসেবে প্রসিদ্ধ । তুমি বৃদ্ধ বয়সে মুহাম্মদ বিন আলীর সাক্ষাত লাভ করবে তাকে আমার সালাম পৌছিয়ে দিও ।

অতঃপর তদীয় পুত্র জাফর, জাফরের ছেলে মুসা, তার পুত্র আলী, আলীর পুত্র মুহাম্মদ, মুহাম্মদের পুত্র আলী এবং তদীয় পুত্র হাসান অতঃপর হাসানের পুত্রের আসল নাম ও ডাক নাম আর আমার আসল নাম ও ডাক নাম একই হবে । আল্লাহ তাকে সমগ্র বিশ্বের বুকে প্রতিষ্ঠিত করবেন । তিনি লোকচক্ষুর অন্তরালে গমন করবেন । তার অদৃশ্যতার সময়সীমা দীর্ঘ হবে । যাদের ঈমান শক্তিশালী তারাই শুধু তার নেতৃত্বের উপর অটল থাকবেন ।(কিফয়া আল আসার, পৃঃ-৭ (পুরানো প্রিন্ট), কায়রো আল আসার, পৃঃ-৫৩-৬৯, প্রিন্ট ক্বোম ১৪০১ হিঃ)

অন্যত্র এভাবে উল্লেখ আছে, রাসূলুল্লাহ বলেছেনঃ আমি নবীদের সর্দার আর আলী বিন আবি তালিব হচ্ছেন উত্তরাধীকারীদের নেতা । নিশ্চয়ই আমার পরে বারজন উত্তরাধীকারী হবেন । তাদের সর্ব প্রধান ও সর্ব প্রথম হচ্ছেন আলী ইবনে আবি তালিব । তারপর হাসান, হাসানের পর তারই সহোদর ভ্রাতা হুসাইন এবং হুসাইনের পর পর্যায়ক্রমে আলী বিন হুসাইন, মুহাম্মদ বিন আলী, জা’ফর বনি মুহাম্মদ, মুসা বিন জা’ফর, আলী ইবনে মুসা, মুহাম্মদ বিন আলী, আলী ইবনে মুহাম্মদ, হাসান ইবনে আলী এবং সর্বশেষ ইমাম হচ্ছেন আল মাহদী ।(ফারায়েদুস সমিতাইন, খণ্ড-২, পৃঃ-৩১২, হাদীস নং-৫৬২)

মুসলিম তার সহীহাতে নিম্নলিখিতভাবে হাদীসটি উল্লেখ করেছেনঃ

قال رسول الله (ص): لا یزال الدین قائما حتی تقوم الساعة او یکون علیکم اثنی عشر خلیفة، اولهم علی بن ابی طالب ثم الحسن ثم الحسین ثم علی بن الحسین……………………………آخرهم المهدی.

অর্থাৎঃ আল্লাহর রাসূল (সা.) বলেছেনঃ দ্বীন ইসলাম ধ্বংস হবে না কিয়ামত পর্যন্ত, অথবা বারজন খলিফার আগমন পর্যন্ত, তাদের মধ্যে সর্বপ্রথম ইমাম হচ্ছেন আলী ইবনে আবি তালিব, অতঃপর হাসান, তারপর হুসাইন, তারপর আলী ইবনে হুসাইন…….তাদের সর্বশেষ হচ্ছেন আল মাহদী ।

জনাব বুখারীও তার সহীহাতে এ হাদীসটি উল্লেখ করেছেন । ‘ইয়া নাবিউল মাওয়াদদ্দা’ গ্রন্থে উক্ত হাদীসটির মধ্যে অতিরিক্ত আরো কয়েকটি কথা সংযুক্ত করা হয়েছে । গ্রন্থকার آخرهم المهدی অর্থাৎ সর্ব শেষ আল মাহদী কথাটি বর্ণনা করার পর লিখেছেনঃ

هم ائمة مطهرون معصومون و خلفائی من بعدی

অর্থাৎঃ {নবী (সা.) বলেছেন} তারা হচ্ছেন পবিত্র মা’সুম ইমাম এবং আমার পরবর্তীতে আমার খলিফা ।

(ফারায়েদুস সমিতাইন, খণ্ড-২, পৃঃ-৩১২; সহি বুখারী, খণ্ড-৪, পৃঃ-১৬৫; সহি মুসলিম, খণ্ড-৬, পৃঃ-৩-৪; ইয়ানাবিউল মাওয়াদদাহ,আশ শেইখ সুলাইমান, খণ্ড-১, পৃঃ-৩৪৯;খণ্ড-২, পৃঃ-৩১৬,খণ্ড-৩, পৃঃ-২০৭,২৯১; সহি আত তিরমিযি, খণ্ড-৩, পৃঃ-৩৪২; সুনানে আবি দাউদ, খণ্ড-৩, পৃঃ-৩০২; কানযুল উম্মাল, খণ্ড-১২, পৃঃ-১৬৫ ; মাওয়াদ্দা আল কোবরা, পৃঃ-২৯; মাক্বতাল আল হুসাইন লি খাওয়ারেযমী, পৃঃ-১৪৬, হাদীস নং-৩২০; তারিখে দামেস্ক, খণ্ড-৭, পৃঃ-১০৩; উসদুল গাবা, খণ্ড-৫, পৃঃ-৫৭৪ । এ ধরণের আরো অনেক গ্রন্থে বার ইমামের নাম সহ প্রচুর হাদীস উল্লেখ করা হয়েছে । আশা করি সত্য গ্রহনকারীদের জন্যে উপরোক্ত কয়টি উদ্ধৃতি যথেষ্ট বলে প্রমাণিত হবে)

(এই প্রবন্ধটি মোঃ নূরে আলম লিখিত সত্যের আলো গ্রন্থ থেকে সংকলিত)

মতামত দিন