প্রবন্ধ

মসাজান ও সৈয়দগন

মসাজান  “সৈয়দগন

আপনাদের জ্ঞাতার্থে খুব সংক্ষিপ্ত ভাবে আমার ছোট্ট এ প্রয়াস।হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ১০ নং লস্করপুর ইউনিয়নের অন্তর্গত“মসাজান” একটি ঐতিহাসিক গ্রামের নাম। সৈয়দ মিনা উরফে সৈয়দ সুলতান(রঃ) সহোদর ভাই এককালের তরপের অধিপতি সৈয়দ মুসা’র নাম থেকে মসাজান (مسجن) নামকরন হয়েছে।

সৈয়দ মিনা উরফে সৈয়দ সুলতান(রঃ) ও সৈয়দ মুসা (রঃ) সিলেটের তরফ অঞ্চলের লস্করপুর নিবাসী সৈয়দ মেকাইল(রঃ)এর পুত্র ছিলেন। সৈয়দ মিনা উরফে সৈয়দ সুলতান(রঃ) লস্করপুর হতে হবিগঞ্জ উপজেলার সুলতানসী গিয়ে বসতি স্থাপন করেন।সৈয়দ মিনা উরফে সৈয়দ সুলতান(রঃ) -এর নামানুসারে “সুলতাসী” নামকরন হয়। সৈয়দ মিনা উরফে সৈয়দ সুলতান(রঃ) এর ৩ জন পুত্র সন্তান ছিলেন।

১ ) সৈয়দ ইউনুছ(রঃ)

২ ) সৈয়দ জিকরিয়া(রঃ)

৩ ) সৈয়দ গিয়াস উদ্দিন ওরেফ সৈয়দ গোয়াস (রঃ)।

সৈয়দ গিয়াস উদ্দিন ওরেফ সৈয়দ গোয়াস (রঃ) তাঁর সহোদর দু’ভাইকে  মূল বাড়ী সুলতানসী (সাত আনী অংশ) হাবিলীতে রেখে সুলতানসী হতে ২ কিলোমিটার পশ্চিমে শ্রদ্ধেয় চাচা সৈয়দ মুসা (রঃ)  নামে প্রতিষ্ঠিত “মসাজান” এ বসতি  স্থাপন করেন।

সৈয়দ গিয়াস উদ্দিন ওরেফ সৈয়দ গোয়াস (রঃ) একজন কামেল ওলী ছিলেন। তিনি আরবী, ফার্সী, উর্দু ভাষায় পারদর্শী ছিলেন।কথিত আছে যে, এতদঞ্চলের মানুষের সুপেয় পানীয় জলের সুবিধার্থে আল্লাহ্ প্রদত্ত তাঁর অলৌকিক ক্ষমতাবলে এক রাত্রিতে প্রায় দেড়’শ বিঘা জমির উপর দীঘি খনন করেন, যা আজও সকলের নিকট সমাদৃত। সৈয়দ গিয়াস উদ্দিন ওরেফ সৈয়দ গোয়াস  (রঃ) -এর বংশধর গনই মসাজান-এ আছেন। প্রচীরঘেরা দীঘির পশ্চিম-দক্ষিণকোনে হোসাইনী মোকামের পার্শ্বে আল্লাহর এই ওলী শুয়ে আছেন। আজও দিক-দিগন্ত হতে হাজার হাজার মানুষ আল্লাহর এই ওলীর কৃতী পরিদর্শনে ছুটে আসেন।

আল্লাহর ওলী  সৈয়দ গিয়াস উদ্দিন ওরেফ সৈয়দ গোয়াস  (রঃ) এর মাজার যিয়ারত   সহ তাঁর   অলৌকিক  কৃতী মসাজান দিঘীপরিদর্শনের জন্য আপনাদের প্রতি আমন্ত্রণ রইল।আশাকরি সংক্ষিপ্ত পরিসরে আমার এই ছোট্ট প্রয়াস থেকে আপনাদের জিজ্ঞাসার জবাব পেয়েছেন।

লেখার শেষাংশে এসে, মনের অজান্তেই  লালন ফকিরের এই কথা  গুলো মনে পড়ে গেল….

“ বাড়ীর পার্শ্বে  আরশী নগর ,

সেথা এক পড়শী বসত করে

আমি একদিনও না দেখিলাম তারে”।

আসুন, ঘর হতে দু’পা ফেলে দশ-দিগন্তে চক্ষু মেলে তাকাই।পরিশেষে আপনাদের  অনেক  অনেক ধন্যবাদ।

সৈয়দ জয়নাল আবেদীন মসাজান, সৈয়দ বাড়ী,হবিগঞ্জ।

মন্তব্য

  • মাসাজান সম্পর্কে জানানোর জন্য অশেষ ধন্যবাদ।

  • মাসাজান সম্পর্কে জানানোর জন্য অশেষ ধন্যবাদ।

মতামত দিন