স্মৃতি

সুলতানশী’র সর্বজন শ্রদ্ধেয় সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী (রঃ) সাহেবের ইনতেকালের সংবাদে বিভিন্ন পত্রিকা

সিপাহসালার সৈয়দ নাসিরুদ্দীন রহ. ইন্সটিটিউট এর স্মৃতির পাতায় চীর জাগরূক সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী (রহ)

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ঐতিহাসিক সুলতানশী হাবেলীর বিশিষ্ট লেখক, ইসলামী চিন্তাবিদ সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনি চিশতী ওরফে আউলিয়া মিয়া (৮২) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি … রাজিউন)। শনিবার ভোর ৬টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকার এ্যাপোলো হাসপাতালে তিনি ইন্তেকাল করেন। তিনি তিন ছেলে ও স্ত্রী রেখেগেছেন। রোববার বেলা ১১টায় সুলতানশী হাবেলী মাঠে জানাজা শেষে তার লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।  https://www.jugantor.com/todays-paper/obituary/174383/আউলিয়া-মিয়া

 

লাখো ভক্তবৃন্দকে কাদিয়ে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ঐতিহাসিক সুলতানশী হাবেলীর সু-শিক্ষিত পন্ডিত নামে খ্যাত বিশিষ্ট লেখক, ইসলামী চিন্তাবিদ ও আধ্যাত্মিক সাধক পীরে ক্বামেল সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনি চিশতী ওরফে সৈয়দ আওলিয়া মিয়া।
গতকাল রবিববার সকাল ১১টায় সুলতানশী মাঠ প্রাঙ্গনে মরহুমের জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। এতে স্থানীয় এলাকাবাসীসহ জেলার বিভিন্ন স্থানকে আসা হাজার হাজার মুসল্লিয়ানদের ঢল নামে।জানাযার নামাজে ইমামতি করেন মরহুমের ভাই সৈয়দ গোলাম কিবরিয়া।পরে মোনাজাত শেষে পারিবারিক কবরস্থানে মরহুমের লাশ দাফন করা হয়। উল্লেখ্য, গত শনিবার সকাল ৬ টা ১০ মিনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকার একটি হাসপাতালে বার্ধক্যজনক কারণে ইন্তেকাল করেন সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতী ওরফে সৈয়দ আউলিয়া মিয়া। তার মৃত্যর সংবাদ শুনে সুলতানশী হাবিলীসহ ভক্তমহলে শোকের ছায়া নেমে আসে।

অভিভাবক শূন্য হয়ে পড়ে সুলতানশী হাবিলী। মরহুমের পারিবারিক সূত্র জানায়, ১৩৪৩ বাংলা সনের ২৩ শে অগ্রাহয়ণ জন্মগ্রহন করেন সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতী ওরফে সৈয়দ আউলিয়া মিয়া। তাঁর পিতা মরহুম সৈয়দ গোলাম মোস্তফা হোসাইনী চিশতি একজন ইংরেজী, আরবী, উর্দু ও ফারসী ভাষায় উচ্চ শিক্ষিত আলেম ছিলেন।

সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতি ১৯৫৬ ইং সনে বাংলা, আরবী-ফারসী, উর্দু ও ইংরেজী ভাষায় উচ্চ শিক্ষা লাভ করে পান্ডিত্য অর্জন করেন।

পিতার রেখে যাওয়া হাজারো কিতাবের একটি লাইব্রেরী প্রাপ্ত হন। ১৯৫৬ ইং সন থেকে জীবনের অন্তিমকাল অবধী আরবী, উর্দু, ফারসী ও ইংরেজী ভাষায় ইসলাম ধর্মীয় জটিল তত্ত্বসমূহের গবেষণার কাজ চালিয়ে গেছেন। বাংলা-ইংরেজী, আরবী-উর্দু ও ফারসী ভাষায় তিনি একজন সুপন্ডিত ছিলেন।

সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনি চিশতী অনেক সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন ছাড়াও তিনি বহু গ্রন্থ রচনা করেছেন। তিনি হবিগঞ্জ সাহিত্য পরিষদ-এর সভাপতি ও সিপাহসালার সাইয়্যেদ নাসিরউদ্দিন পরিষদের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি নিয়মিত মাসিক মদিনা, মাসিক তরজুমানসহ বিভিন্ন পত্রিকায় নিয়মিত কলাম লেখতেন। তার রচিত গ্রন্থগুলোর মধ্যে দ্বীনহীন রচনাবলী, তরফের ইতিবৃত্ত, মহরম পরিচিতি, শানে পাঞ্জাতন ও ডুব দাও সখা সত্য সিন্ধু জলে উল্লেখযোগ্য।

এছাড়াও তিনি লিখেছেন তরফের ইতিকথা, শানে পাঞ্জাতন, মহররম পরিচিতি, ইশকে রাছুল, ইসলামের দৃষ্টিতে বায়ত তরিকা ও চিল¬া প্রসঙ্গ, ইসলামের আলো নামাজ প্রসঙ্গ, রচনা- কদমবুচি প্রসঙ্গ, মুআদ্দাত আল কোরবা, আউলিয়া কিরামের ওসীলা ফজিলত ও মর্যাদা।

তাঁর প্রতিষ্ঠিত মহাকবি সৈয়দ সুলতান সাহিত্য ও গবেষণা পরিষদ থেকে অনেকগুলো স্মারক গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে ।     http://dailysylhetnews.com/news/details/Sylhet/4896

স্টাফ রিপোর্টার ॥ লাখো ভক্তবৃন্দকে কাদিয়ে চিরনিদ্্রায় শায়িত হলেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ঐতিহাসিক সুলতানশী হাবেলীর সু-শিক্ষিত পন্ডিত নামে খ্যাত বিশিষ্ট লেখক, ইসলামী চিন্তাবিদ ও আধ্যাত্মিক সাধক পীরে ক্বামেল সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনি চিশতী ওরফে সৈয়দ আওলিয়া মিয়া সাহেব। গত রবিববার সকাল ১১ টায় সুলতানশী মাঠ প্রাঙ্গনে মরহুমের জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। এতে স্থানীয় এলাকাবাসীসহ জেলার বিভিন্ন স্থানকে আসা হাজার হাজার মুসল্লিয়ানদের ঢল নামে। জানাযার নামাজে ইমামতি করেন মরহুমের ভাই সৈয়দ গোলাম কিবরিয়া। পরে মোনাজাত শেষে পারিবারিক কবরস্থানে মরহুমের লাশ দাফন করা হয়।
উল্লেখ্য, গত শনিবার সকাল ৬ টা ১০ মিনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকাস্থ এ্যাপোলো হাসপা তালে বার্ধক্যজনক কারণে ইন্তেকাল করেন সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতী ওরফে সৈয়দ আউলিয়া মিয়া সাহেব। তাঁর মৃত্যর সংবাদ শুনে সুলতানশী হাবিলীসহ ভক্তমহলে শোকের ছায়া নেমে আসে। অভিভাবক শূন্য হয়ে পড়ে সুলতানশী হাবিলী।   https://www.habiganjexpress.com/?p=98256

 

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ঐতিহাসিক সুলতানশী হাবেলীর বিশিষ্ট লেখক, ইসলামী চিন্তাবিদ ও আওলাদে রাসুল পীরে ক্বামেল সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনি চিশতী ওরফে আউলিয়া মিয়া সাহেব ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তিনি গতকাল শনিবার ভোর ৬ টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকাস্থ এ্যাপোলো হাসপাতালে বার্ধক্যজনক কারণে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। তিনি ৩ ছেলে, স্ত্রী, আত্মীয়-স্বজনসহ লক্ষাধিক ভক্তবৃন্দ রেখে গেছেন। সৈয়দ হাসান ইমামের মৃত্যু সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে তাঁর ভক্তবৃন্দ ও সাহিত্য সমাজের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। এ সময় সুলতানশী হাবেলীতে মানুষের ভীড় জমে। সৈয়দ হাসান ইমামের নামাজে জানাজা আজ রবিবার বেলা ১১টায় সুলতানশী হাবেলীর মাঠে অনুষ্ঠিত হবে। সকল ধর্মপ্রাণ মুসল্লিকে তাঁর নামাজে জানাজায় উপস্থিত থাকার জন্য পরিবারের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।
উল্লেখ্য, সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনি চিশতী অনেক সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন ছাড়াও তিনি বহু গ্রন্থ রচনা করেছেন। তিনি হবিগঞ্জ সাহিত্য পরিষদ সভাপতি ও সিপাহসালার সাইয়্যেদ নাসিরউদ্দিন পরিষদের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। তিনি নিয়মিত মাসিক মদিনা, মাসিক তরজুমানসহ বিভিন্ন পত্রিকায় নিয়মিত কলাম লেখতেন। তার রচিত গ্রন্থগুলোর মধ্যে দ্বীনহীন রচনাবলী, তরফের ইতিবৃত্ত, মহরম পরিচিতি, শানে পাঞ্জাতন ও ডুব দাও সখা সত্য সিন্ধু জলে উল্লেখযোগ্য। সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী (রঃ) এর জন্ম ঃ ১৩৪৩ বাংলা সনের ২৩ শে অগ্রাহয়ণ। তাঁর পিতা মরহুম সৈয়দ গোলাম মোস্তফা হোসাইনী চিশতি (রঃ) একজন ইংরেজী, আরবী, উর্দু ও ফারসী ভাষায় উচ্চ শিক্ষিত আলেম ছিলেন। সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতি (রঃ) ১৯৫৬ ইং সনে বাংলা, আরবী-ফারসী, উর্দু ও ইংরেজী ভাষায় উচ্চ শিক্ষা লাভ করে পান্ডিত্য অর্জন করেন। উনার পিতার রেখে যাওয়া হাজারো কিতাবের একটি লাইব্রেরী প্রাপ্ত হন। ১৯৫৬ ইং সন থেকে জীবনের অন্তিমকাল অবধী আরবী, উর্দু, ফারসী ও ইংরেজী ভাষায় ইসলাম ধর্মীয় জটিল তত্ত্বসমূহের গবেষণার কাজ চালিয়ে গেছেন। বাংলা-ইংরেজী, আরবী-উর্দু ও ফারসী ভাষায় তিনি একজন সুপন্ডিত ছিলেন। এ পর্যন্ত উনার লিখা বই গুলো হচ্ছে ঃ ১. তরফের ইতিকথা (যা ইসলামি বিশ্বকোষে অর্ন্তভূক্ত হয়েছে)। ২. শানে পাঞ্জাতন ৩. মহররম পরিচিতি ৪. ইশকে রাছুল ৫. ডুব দাও সখা সত্য সিন্ধু জলে ৬. ইসলামের দৃষ্টিতে বায়ত তরিকা ও চিল্লা প্রসঙ্গ ৭. ইসলামের আলো নামাজ প্রসঙ্গ ৮. সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতি রচনা সমগ্র ৯. কদমবুচি প্রসঙ্গ ১০. মুআদ্দাত আল কোরবা ১১. আউলিয়া কিরামের ওসীলা ফজিলত ও মর্যাদা। তাঁর প্রতিষ্ঠিত মহাকবি সৈয়দ সুলতান সাহিত্য ও গবেষণা পরিষদ থেকে অনেকগুলো স্মারক গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে।
এদিকে সুলতানশী হাবিলীর পীরজাদা সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনি চিশতী ওরফে আউলিয়া মিয়া সাহেবের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরী, হবিগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলাম, সাবেক চেয়ারম্যান সৈয়দ আহমদুল হক, হবিগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র আলহাজ্ব জিকে গউছ, পইল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ মইনুল হক আরিফ, সাবেক চেয়ারম্যান সাহেব আলী, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মোঃ ফজলুর রহমান, মোহাম্মদ নাহিজ, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ এখলাছুর রহমান খোকন, হবিগঞ্জ টিভি জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ছানু মিয়া, জেলা সাংবাদিক ফোরাম এর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ কাউছার আহমেদ প্রমূখ।
নেতৃবৃন্দ সংবাদপত্রে প্রদত্ত যৌথ বিবৃতিতে মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে শোক সন্তপ্ত পরিবার বর্গের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।   https://www.habiganjexpress.com/?p=98182

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ঐতিহাসিক সুলতানশী হাবেলীর বিশিষ্ট লেখক, ইসলামী চিন্তাবিদ ও আওলাদে রাসূল পীরে ক্বামেল সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনি চিশতী ওরফে আউলিয়া মিয়া সাহেব ইন্তেকাল করেছেন। (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি গতকাল শনিবার ভোর ৬ টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকাস্থ এ্যাপোলো হাসপাতালে বার্ধক্যজনক কারণে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। তিনি ৩ ছেলে, স্ত্রী, আত্মীয়-স্বজনসহ লক্ষাধিক ভক্তবৃন্দ রেখে গেছেন। সৈয়দ হাসান ইমামের মৃত্যু সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে তাঁর ভক্তবৃন্দ ও সাহিত্য সমাজের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। এ সময় সুলতানশী হাবেলীতে মানুষের ভীড় জমে। সৈয়দ হাসান ইমামের নামাজে জানাযা আজ রবিবার বেলা ১১টায় সুলতানশী হাবেলীর মাঠে অনুষ্ঠিত হবে। সকল ধর্মপ্রাণ মুসল্লিকে তাঁর নামাজে জানাযায় উপস্থিত থাকার জন্য পরিবারের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তি।।  https://kazirbazar.com/সমগ্র-সিলেট/সুলতানশী-হাবিলীর-পীরজাদা/

হাজার হাজার ভক্তবৃন্দকে কাদিয়ে শেষ নিঃস্বাস ত্যাগ করলেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ঐতিহাসিক সুলতানশী হাবেলীর বিশিষ্ট লেখক, ইসলামী চিন্তাবিদ ও আধ্যাত্মিক সাধক পীরে ক্বামেল সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনি চিশতী ওরফে সৈয়দ আউলিয়া মিয়া। গতকাল শনিবার ভোর ৬টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকার একটি হাসপাতালে বার্ধক্যজনক কারণে ইন্তেকাল করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। তিনি ইহকালে ৩ পুত্র, স্ত্রী ও আত্মীয়স্বজনসহ লক্ষাধিক ভক্তবৃন্দ এবং অসংখ্য গুনগাহী রেখে গেছেন। গতকাল সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনি চিশতীর মৃত্যু সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে তাঁর ভক্তবৃন্দ ও সাহিত্য সমাজের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। মরহুমের লাশ বিকেলে সুলতানশী হাবেলীতে পৌছলে সেখানে খবর পেয়ে উপস্থিত হন হবিগঞ্জ সদর-লাখাই ও শায়েস্তাগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এডভোকেট মোঃ আবু জাহির। এ সময় তিনি গভীর শোক প্রকাশ করেন এবং মরহুমের আত্মীয়-স্বজনের সাথে কথা বলেন ও পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। এছাড়াও স্থানীয় এলাকাবাসীসহ বিভিন্ন স্থান থেকে আসা হাজার হাজার ভক্তবৃন্দের উপস্থিতিতে শোকসন্তপ্ত মানুষের ভীড় জমে। সৈয়দ হাসান ইমামের নামাজে জানাজা আজ রবিবার সকাল ১১টায় সুলতানশী হাবেলীর মাঠ প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হবে। সকল ধর্মপ্রাণ মুসল্লিকে তাঁর নামাজে জানাজায় উপস্থিত থাকার জন্য পরিবারের পক্ষ থেকে আহ্বান জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতী ১৩৪৩ বাংলা সনের ২৩ শে অগ্রাহয়ণ জন্মগ্রহন করেন। তাঁর পিতা মরহুম সৈয়দ গোলাম মোস্তফা হোসাইনী চিশতি একজন ইংরেজী, আরবী, উর্দু ও ফারসী ভাষায় উচ্চ শিক্ষিত আলেম ছিলেন। সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতি ১৯৫৬ ইং সনে বাংলা, আরবী-ফারসী, উর্দু ও ইংরেজী ভাষায় উচ্চ শিক্ষা লাভ করে পান্ডিত্য অর্জন করেন। পিতার রেখে যাওয়া হাজারো কিতাবের একটি লাইব্রেরী প্রাপ্ত হন। ১৯৫৬ ইং সন থেকে জীবনের অন্তিমকাল অবধী আরবী, উর্দু, ফারসী ও ইংরেজী ভাষায় ইসলাম ধর্মীয় জটিল তত্ত্বসমূহের গবেষণার কাজ চালিয়ে গেছেন। বাংলা-ইংরেজী, আরবী-উর্দু ও ফারসী ভাষায় তিনি একজন সুপন্ডিত ছিলেন। সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনি চিশতী অনেক সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন ছাড়াও তিনি বহু গ্রন্থ রচনা করেছেন। তিনি হবিগঞ্জ সাহিত্য পরিষদ-এর সভাপতি ও সিপাহসালার সাইয়্যেদ নাসিরউদ্দিন পরিষদের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি নিয়মিত মাসিক মদিনা, মাসিক তরজুমানসহ বিভিন্ন পত্রিকায় নিয়মিত কলাম লেখতেন। তার রচিত গ্রন্থগুলোর মধ্যে দ্বীনহীন রচনাবলী, তরফের ইতিবৃত্ত, মহরম পরিচিতি, শানে পাঞ্জাতন ও ডুব দাও সখা সত্য সিন্ধু জলে উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও তিনি লিখেছেন তরফের ইতিকথা, শানে পাঞ্জাতন,  মহররম পরিচিতি, ইশকে রাছুল, ইসলামের দৃষ্টিতে বায়ত তরিকা ও চিল¬া প্রসঙ্গ, ইসলামের আলো নামাজ প্রসঙ্গ, রচনা- কদমবুচি প্রসঙ্গ, মুআদ্দাত আল কোরবা, আউলিয়া কিরামের ওসীলা ফজিলত ও মর্যাদা। তাঁর প্রতিষ্ঠিত মহাকবি সৈয়দ সুলতান সাহিত্য ও গবেষণা পরিষদ থেকে অনেকগুলো স্মারক গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে।   http://habiganj-samachar.com/index.php/samachar_view/news_details/2019-05-05/45087

হবিগঞ্জ সংবাদদাতা।। সিপাহসালার সৈয়দ নাসির ঊদ্দিন রহ: পরিবার আজ একজন কিংবদন্তীর নক্ষত্রসম অভিভাবক হারাল। হবিগঞ্জ সদর উপজেলার, ঐতিহাসিক সুলতানসী দরবার শরীফের পীর সাহেব সৈয়দ হাসান ইমাম চিশতী(আউলিয়া মিয়া সাহেব) আজ শনিবার ৪ঠা মে সকাল ৬.৩০মিনিটের সময় ঢাকা এ্যাপোলো হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন(ইন্নালিল্লাহে ওয়াইন্না ইলাইহে রাজেউন)।
সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী(রঃ)এর জন্ম ১৩৪৩ বাংলা সনের ২৩শে অগ্রাহয়ণ। তাঁর পিতা মরহুম সৈয়দ গোলাম মোস্তফা হোসাইনী চিশতি(রঃ) একজন ইংরেজী, আরবী, উর্দু ও ফারসী ভাষায় উচ্চ শিক্ষিত আলেম ছিলেন। প্রয়াত হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতি ১৯৫৬ইং সন থেকে জীবনের অন্তিমকাল অবদি আরবী, উর্দু, ফারসী ও ইংরেজী ভাষায় ইসলাম ধর্মীয় জটিল তত্ত্বসমূহের গবেষণার কাজ চালিয়ে গেছেন। বাংলা-ইংরেজী, আরবী-উর্দু ও ফারসী ভাষায় তিনি একজন সুপন্ডিত ছিলেন। পিতার রেখে যাওয়া হাজারো পুস্তকের একটি পাঠাগারও তিনি সারাজীবন সংরক্ষন করে গেছেন যত্নের সাথে।
এ পর্যন্ত উনার লিখা বই গুলো হচ্ছেঃ তরফের ইতিকথা(যা ইসলামি বিশ্বকোষে অর্ন্তভূক্ত হয়েছে), শানে পাঞ্জাতন, মহররম পরিচিতি; ইশকে রাছুল, ডুব দাও সখা সত্য সিন্ধু জলে, ইসলামের দৃষ্টিতে বায়ত তরিকা ও চিল্লা প্রসঙ্গ; ইসলামের আলো নামাজ প্রসঙ্গ, সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতি রচনা সমগ্র, কদমবুচি প্রসঙ্গ; মুআদ্দাত আল কোরবা, আউলিয়া কিরামের ওসীলা ফজিলত ও মর্যাদা।
তাঁর প্রতিষ্ঠিত মহাকবি সৈয়দ সুলতান সাহিত্য ও গবেষণা পরিষদ থেকে অনেকগুলো স্মারক গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়াও তিনি তরজুমান, মাসিক মদীনা, মাসিক মিনহাজসহ অসংখ্য ম্যাগাজিনে প্রচুর পরিমানে ধর্মীয় প্রবন্ধ লিখেছেন।   http://www.muktokotha.com/?p=19300

@sat

মন্তব্য

    • কোন হুসানী জাতক অভিভাবকহীন নয় রে ভাই, তাদের অভিভাক চির বর্তমান- ইমামে জামান মাহদী আল কায়েম আঃ ফাজাহুম।

মতামত দিন