প্রবন্ধ

ইমাম মুহাম্মদ বিন আলী আল বাকের আলাইহিস সালামের পবিত্র বিলাদত শরীফ।

আজ হিজরীর ১লা রজব নবীবংশের দীপ্তিমান পঞ্চম নক্ষত্র, আল্লাহর হুজ্জাত, পবিত্র আহলে বাইতের অন্যতম সদস্য, ইমাম মুহাম্মদ বিন আলী আল বাকের আলাইহিস সালামের পবিত্র বিলাদত শরীফ।জ্ঞানের বিশাল সমুদ্র, ইসলামের বিকাশ ও উন্নয়নে যাঁর ছিল অসামান্য অবদান-তিনি হলেন ইমাম মোহাম্মাদ বাক্বির (আ.)। ইসলামের সত্যিকার শিক্ষা ও সংস্কৃতিসহ এ ধর্মের সার্বিক দিকগুলোর সংরক্ষণ, ক্রমবিকাশ এবং ক্রম-অগ্রগতি মহান ইমাম বাক্বির (আ.)’র কাছে চিরঋণী। বাক্বির আল উলুম বা জ্ঞান বিদীর্ণকারী ছিল তাঁর সবচেয়ে বিখ্যাত উপাধি।
হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) সাহাবী জাবীর বিন আবদুল্লাহ আনসারিকে বললেনঃ ওহে জাবির! তুমি আমার সন্তান (মুহাম্মদ বিন আলী বিন হোসাইন বিন আলী বিন আবু তালিব) যার নাম তৌরাতে (বাকের), বলে সম্বোধন করা হয়েছে তাঁকে দেখা পর্যন্ত জীবিত থাকবে। যখন তোমার সাথে তার দেখা হবে তাঁকে আমার সালাম পৌঁছে দিও। নবী করিম (সাঃ) পরলোক গমনের পর তার ভবিষ্যৎ বানী অনুযায়ী হযরত জাবির অনেক দিন জীবিত ছিল। আর একদিন ইমাম জয়নুল আবেদীন (আঃ) এর বাড়ীতে এসে শিশু অবস্থায় ইমাম বাকের (আঃ) কে দেখে বললেন, কাছে এসো, ইমাম বাকের (আঃ) তার কাছে এলে সে তাঁকে আবার ফিরে যেতে বললো, ইমাম ফিরে গেলেন। জাবির তার পবিত্র দেহ ও পথ চলাকে লক্ষ্য করে বললেন, আল্লাহ্‌র কাবা ঘরের কসম অবিকল নবী (সাঃ) এর মত দেখতে হয়েছে। তারপর সে ইমাম সাজ্জাদ (আঃ) কে জিজ্ঞেস করলো এই শিশু কে? ইমাম বললেন, সে (মুহাম্মদ বাকের) আমার সন্তান, এবং আমার পরে তোমাদের ইমাম। জাবির উঠে দাঁড়ালো এবং ইমাম বাকের (আঃ) এর পায়ে চুম্বন দিয়ে বললঃ হে নবী (সাঃ) এর সন্তান, আপনার জন্য আমার জীবন উৎসর্গিত হোক। আপনার পিতা নবী (সাঃ) এর সালাম ও দুরুদ গ্রহণ করুন কেননা তিনি আপনাকে সালাম দিয়েছেন। ইমাম বাকের (আঃ) এর দৃষ্টি মোবারক পানিতে ভরে গেল। তিনি বললেন, সালাম ও দুরুদ আমার পিতা নবী (সাঃ) এর উপর যতদিন এই আকাশ মণ্ডলী ও জমিন অবশিষ্ট থাকবে। আর তোমার উপরেও সালাম হে জাবির যেহেতু তুমি তাঁর সালাম কে আমার উপর পৌঁছিয়েছ।(আমলি, শেখ ছাদুক, পৃঃ-২১১।)
এই মহান ইমামের পবিত্র আর্বিভাব দিবস উপলক্ষে সবাইকে জানাচ্ছি মুবারকবাদ এবং এই মহান ইমামের প্রতি জানাচ্ছি অশেষ দরুদ ও সালাম।
ইয়া আবা জাফারিন ইয়া মুহাম্মাদাবনা আলীয়ীন আইয়োহাল বাক্বেরো, ইয়াবনা রাসূলিল্লহি ইয়া হুজ্জাতুল্লাহি আলা খালক্বেহি, ইয়া সাইয়্যেদানা ওয়া মাওলানা ইন্না তাওয়াজ্জাহনা ওয়া ওয়াস তাশফা’না ওয়া তাওয়াস্ সালনা বিকা ইলাল্লাহি, ওয়া ক্বাদ্দামনাকা বায়না য়্যাদায় হাজাতেনা। ইয়া ওয়াযিহান ইলাল্লাহি ইশফালানা ইন্দাল্লাহি। আল্লাহুম্মা সাল্লে আলা মুহাম্মাদ ওয়া আলে মুহাম্মাদ ওয়া আজ্জিল ফারাজাহুম।

About the author

Syed Hossain ul Haque

সৈয়দ হোসাইন উল হক তরফ ও শ্রীহট্ট বিজয়ী মহান মনিষী সিপাহসালার সৈয়দ নাসির উদ্দিন (রহঃ)এর অধস্থন পুরুষ ‘নবী বংশ পরিচিতি ও মহান কোরবানি’ গ্রন্থের লেখক, হবিগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী সুরাবই সাহেব বাড়ীর সিংহপুরুষ সৈয়দ মোঃ ইসহাক আল হুসাইনী (রহঃ)সাহেবের মেঝ ছেলের ঘরের বড় নাতি।মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পাশ করার পর উচ্চশিক্ষার জন্য স্কলারশিপ নিয়ে যুক্তরাজ্য গমন অতঃপর ইউনিভার্সিটি অফ সান্ডারল্যান্ড থেকে বিজনেস ম্যানেজমেন্টে অনার্স এবং কুইন মেরী ইউনিভার্সিটি থেকে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস এন্ড পলিটিক্সের উপর এম এস সি। তারপর ২০১৮ সালে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে ইসলামিক স্টাডিজ এন্ড হিস্টোরি’তে এম-ফিল। শিক্ষানবিশ কালে সেই সকল বিশ্ববিদ্যালয় সমুহের বিভিন্ন ছাত্র সংঘটনের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন।বর্তমানে লন্ডনে স্থায়ী ভাবে বসবাস করছেন পাশাপাশি লন্ডনের একটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের প্রজেক্ট ম্যানেজারের দায়িত্বরত।তাছাড়াও যুক্তরাজ্যে একটি ইসলামিক ইউনিভার্সিটিতে ভিজিটর লেকচারার ও গবেষনা কেন্দ্রে অবিরাম বিভিন্ন বিষয়ে গবেষনা চালিয়ে যাচ্ছেন।আল-কোরআন ও হাদীসের আলোকে “যবহে আজিম এবং জিকিরে শাহাদাত”শীর্ষক গ্রন্থখানা তার দীর্ঘ গবেষনা ও অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল।

মতামত দিন