দোরুদ

পারস্যের কবি হযরত শেখ সাদী(রহঃ) রচিত অন্তর ছুঁয়ে যাওয়া চমৎকার কাসিদা

ফার্সি সাহিত্যে একটি প্রবাদ আছে— ‘সাতজন কবির সাহিত্যকর্ম রেখে যদি বাকি সাহিত্য দুনিয়া থেকে মুছে ফেলা হয়, তবু ফার্সি সাহিত্য টিকে থাকবে। এই সাতজন কবির অন্যতম শেখ সাদি।’ ফার্সি গদ্যের জনক মহাকবি শেখ সাদি দীর্ঘদিন ধরেই বাংলাভাষী পাঠকের কাছে অতি প্রিয় কবি। শুধু বাঙালিই নয় বিশ্বজুড়ে তিনি অত্যন্ত সমাদৃত।

কাসিদাঃ

بلغ العلی بکماله
کشف الدجی بجماله
حَسُنت جمیع خصاله
صلوا علیه و آله

বালাগাল উলা বি – কামালিহী
কাশাফাদ্দুজা বি – জামালিহী
হাসুনাত জামিউ খিসালিহী
সাল্লু আলাইহি ওয়া আলিহী ।

বাংলা অনুবাদঃ

“যিনি (সাধনায়) পূর্ণতার শেষ প্রান্তে পৌঁছেছেন,
যাঁর সৌন্দর্যের আলোকে দুর হয়েছে অন্ধকার,
যাঁর আচরণ– ব্যবহার ছিল সৌন্দর্যের আকর,
দরুদ তাঁর ও তাঁর আলের উপর।”

বালাগা= পৌঁছানো ।
কামালিহী= পূর্ণতা, পরিপূর্ণতা।
জামালিহী= তাঁর সৌন্দর্য।
খিসালিহী= তাঁর আচরণ– ব্যবহার, চরিত্র।

ইতিহাস থেকে জানা যায়,-
হযরত শেখ সাদী (রহঃ) এই দরুদ শরীফের প্রথম দু’লাইন লেখার পর কি লিখবেন তা তিনি ভাবতে ভাবতে হঠাৎ তন্দ্রাছন্ন ভাব আসলে স্বপ্ন দিদারে তিনি রাসুল (সাঃ) এর যিয়ারত পান। প্রিয় নবীজী (সাঃ) তখন সাদী (রহঃ) কে বলেন –হে সাদী ! তুমি লিখ –

হাসুনাত জামিউ খিসালিহী,
সাল্লু আলাইহি ওয়া আলিহী।

@SHH/SHSNRI/2020

মতামত দিন