প্রবন্ধ

সর্বকালেই লকব চুরদের সবচেয়ে বড় আকর্ষণ- সৈয়দ লকবে।

চোর যখন দরিদ্র থাকে তখন চুরি করে সাধুর মাল-ছামানা; চুরি করতে করতে যখন নিজেকে অভাবমুক্ত মনে করে- তখন এদের লোভ জাগে সাধুর লকবের দিকে। আর সর্বকালেই লকব চুরদের সবচেয়ে বড় আকর্ষণ- সৈয়দ লকবে।

ইদানিং নাকি আমাদের এলাকায় সৈয়দ লকব চোরদের হিরিক পরেছে বলে আমার ভাই-ভাতিজারা ইনবক্সে খবর দিল। এই লকবচোরদের প্রতি হুশিয়ারিমুলক একটা কিছু লেখতেও তারা আবদার করেছে। কিন্তু কি লিখব আমি? আমার শরীর এতই খারাপ যাচ্ছে যে কী বোর্ডে আঙ্গুল দিতেও মন চায়না। তবুও এই লকবচুরির নেশায় মাতোয়ারাদের উদ্দেশ্যে মহব্বতের সহিত বলছিঃ বাবারা, নাহয় চেষ্টা-তদবির করে নতুন প্রজন্ম বা বিদেশিদের কাছে তোমরা সৈয়দ বনেই গেলে, কিন্তু খোদা বলে তো তোমাদের মাথার উপরে একজন লা শরিক আলা রয়েছেন- তাঁর কাছে কিভাবে এই চুরি করা লকব নিয়ে দাঁড়াবে?

শোন বাবারা, প্রকৃত সৈয়দগনের কাছে এই সৈয়দ লকবটা কোনই শান-দেমাগের বিষয় না, বরং এটা খোদা তায়ালা প্রদত্ব তাঁদের গর্দানে পড়িয়ে দেওয়া একটা দায়িত্বের বেড়ি; যে বেড়ির কারনেই সৈয়দদের এত দুঃখকষ্ট, অতৃপ্তি, অন্তরজাতনা আর শেষ রাতের আরামের ঘুম হারাম করতে হয়। বাবারা, কিছু কি বুঝেছ? যদি বুঝে থাক, তাহলে চুরি করা লকব নিয়ে শান-দেমাগির চিন্তা বাদ দিয়ে বরং যে কূলে জন্ম নিয়েছ সেই কুলের পরিচয় বাজায় রেখেই সৈয়দী আদলে আমল-ইবাদত ও মুয়ামালাত করার চেষ্টা করে যাও- তাতেই দুনিয়া ও আখেরাতে খোদার কাছে এবং সমাজের কাছেও তোমার প্রাপ্য সম্মান-মর্যাদার অধিকারী তুমি হবে, উপরন্ত তোমার আমলে ছালিহার জন্য তোমার জাতকুলও ধন্য হবে আর ধন্য হবেন তোমার পূর্বপুরুষগন এবং ধন্য হবে তোমার উত্তরসূরিগনও।

আরেকটা বিষয় না বললেই নয়,কতই না দুর্ভাগ্য যে, বেশিরভাগ আউলাদে রসুল তথা  সৈয়দগন হযরত নুহু (আঃ)এর বকে যাওয়া পুত্রের ন্যায় পিতৃপুরুষের কীস্তি থেকে বিচ্যুত।সেক্ষেত্রে ওরা সয়ং আল্লাহর কাছেও অস্বীকৃত,পথভ্রষ্ট।আসল সৈয়দজাদারাই যখন তাদের মহিমান্বিত আদীপুরুষগণের আকিদাআমল ও রিসালার মূল্যায়নই করতে পারেনা, তেমন কি জানেই না বা জানার আগ্রহও রাখে নাসে ক্ষেত্রে নকল সৈয়দ আর আসল সৈয়দের মধ্যে অথবা হালালজাদা আর হারামজাদার মধ্যে পার্থক্যটাই বা কতটুকো? সেক্ষেত্রে নকল সৈয়দেরা আর আসল সৈয়দের হারামজাদারা তো মুয়াবিয়া এজিদের সাফাই গাইতেই পারে।আসলে এখন প্রকৃত সৈয়দজাদা গনের মূল করনীয়টাই হচ্ছে নিজেদের আদিপুরুষ পাকপাঞ্জাতন আহলে বাইত আঃ গনের আকিদারিসালা ও আমলআখলাকের চর্চার মাধ্যমে নকল ও হারামজাদাদের থেকে নিজেদেরকে পৃথক প্রমান করা। তাহলেই সারা দুনিয়ার কাছে দুধ কা দুধ পানি কা পানি যুদা হয়ে যাবে।

—সৈয়দ আবে তাহের
লেখক ও গবেষক, মশাজান সৈয়দ বাড়ি,হবিগঞ্জ।

মতামত দিন